কাজ শুরু হলেও কোম্পানীগঞ্জে রাস্তা সংস্কার নিয়ে সমালোচনা | Sylhet i News
মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ১০:২১ পূর্বাহ্ন



মোঃ মঈন উদ্দিন মিলন, কোম্পানীগঞ্জ

প্রকাশ ২০২২-০৫-১৩ ১৫:৪১:৫৩
কাজ শুরু হলেও কোম্পানীগঞ্জে রাস্তা সংস্কার নিয়ে সমালোচনা

ভোগান্তির আরেক নাম সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ ধলাই সেতু-দয়ারবাজার কলাবাড়ী -ভাটরাই রাস্তা। প্রায় একযুগের ও বেশিসময় ধরে এই রাস্তাটি সচলের জন্য দাবি জানিয়ে আসছিল কোম্পানীগঞ্জের ভুক্তভোগী মানুষ। বিষয়টি নজরে আসে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদের। তিনি অচল হয়ে পড়া কোম্পানীগঞ্জের গুরুত্বপূর্ণ ধলাই সেতু-দয়ারবাজার কলাবাড়ী -ভাটরাই রাস্তার সচলের কাজে উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

অবশেষে মন্ত্রী ইমরান আহমদ ও কোম্পানীগঞ্জের কৃতিসন্তান পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব শামসুল ইসলাম দ্বয়ের প্রানান্ত প্রচেষ্টায় মূলত টেকসই উন্নয়ন মজবুত রাস্তা নির্মাণে প্রক্রিয়া শুরু হলে রাস্তা সংস্কারে ১৪ কোটি টাকা বরাদ্ধ করা হয়।  

রাস্তা সংস্কার কাজ পায় কিশোরগঞ্জের মেসার্স মমিনুল হক ও মেসার্স রহমান (জেভি) ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কাজের দায়িত্ব পেয়ে দুটি প্রতিষ্ঠানই সম্প্রতি দ্রুত গতিতে  রাস্তাটির প্রাথমিক অর্ধ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করে। কিন্তু রাস্তার চলমান কাজ নিয়ে শুরু হয় সমালোচনা। প্রশ্ন উঠে কাজের মান নিয়ে। এসব অভিযোগে প্রেক্ষিতে সরেজমিন রাস্তাটি পরিদর্শনে গেলে কথা হয় এলাকাবাসীর সাথে।  

এলাকাবাসী জানান, মূল রাস্তার সাইট গার্ড ওয়াল ও বালিভরাট ফিটিং রোলিং শেষ এখন শুধু ঢালাই কাজ ইতিমধ্যে শুরু হওয়ার কথা। কিন্তু ধলাই সেতু হতে কলাবাড়ী, কালীবাড়ী, দয়ার বাজার পর্যন্ত রাস্তার ছোট ব্রীজ দুটিসহ মোট ৭ টি কালভার্ট রয়েছে যা যুগযুগ ধরে বৃহত্তর এলাকার বর্ষা মৌসুমে পানি নিষ্কাষনের সুব্যবস্হার জন্য। চলমান কাজে ব্রীজ-কালভার্ট  সংস্কারের কোন উদ্যোগ দেখা না দেয়ায় কলাবাড়ী, কালীবাড়ি এলাকার জনসাধারণের মধ্যে পানিবন্দী হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।  

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউ/পি সদস্য সিরাজুল ইসলাম চেরাগ আলী বলেন, ৪নং ওয়ার্ডে বর্ষা মৌসুমে পানি নিষ্কাশনের একমাত্র কলাবাড়ী গ্রামের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া বানিরামের খালের উপর ঠান্ডা স্যারের বাড়ি সংলগ্ন একটি ব্রিজসহ আরও কয়েকটি কালভার্ট রয়েছে যা সচল না করলে পুরো এলাকা পানিতে নিমজ্জিত থাকবে বর্ষা মৌসুমে। তিনি এ ব্যাপারে বিষয়টি তদন্তপূর্বক অনতিবিলম্বে খতিয়ে দেখার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানান।

তাছাড়া ভুক্তভোগী পানিবন্দী এক বাসিন্দা বলেন রাস্তাটি দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত ছিলো ভাংগাচোরা রাস্তায় এদিক ওদিক পানি চলাচলকরণে আমাদের ঘরবাড়ীর ভেতর পানি ঢুকেনি কিন্তু রাস্তা সচল করতে উঁচু করায় পানি যাওয়ার রাস্তা না রাখায় জলাবদ্ধতায় আমরা চরম কষ্টে আছি। তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন -শুনলাম প্রথম একবার টেন্ডার বাতিল করা হয় রাস্তাটা টেকসই ও উন্নত করার জন্য। যাই হোক এখন প্রায় ১৫ কোটি টাকার এতবড় একটা রাস্তার কাজে কতৃপক্ষের অবহেলার কারণে জলাবদ্ধতার বিষয়টি নজরে না আনায় উন্নয়নের বিষয়টি আমাদের চরম কষ্টে পরিণত হয়েছে। তিনি অনতিবিলম্বে উপজেলা প্রশাসন কোম্পানীগঞ্জ, সড়ক ও জনপথ বিভাগ,মাননীয় মন্ত্রী ইমরান আহমদের প্রতি জনদুর্ভোগ থেকে বৃহত্তর কলাবাড়ীবাসীর মুক্তির সুগম পথ ব্যবস্হার দাবী জানান।


এনসি

ফেসবুক পেইজ