আজমিরীগঞ্জে শাহ ওলী উল্লাহ এতিমখানার ইতিহাস | Sylhet i News
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন



আজমিরীগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশ ২০২১-১২-০৪ ১৯:৪৮:২৮
আজমিরীগঞ্জে শাহ ওলী উল্লাহ এতিমখানার ইতিহাস

পীরে তরিক্বত আলহাজ্ব হযরত আল্লামা মরহুম শাহ আব্দুল কুদ্দুছ নূরী সাহেব নিজ হাতে প্রতিষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জ উপজেলার  শিবপাশা  গ্রামে

শাহ আব্দুল কুদ্দুছ নূরী দাখিল মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করার পর ২০০৪ সালে একটি হিফজ বিভাগ চালু করার সিদ্ধান্ত নেন।

তখন উনার সন্তান বর্তমান শিবপাশা শাহ আব্দুল কুদ্দুছ নূরী দাখিল মাদরাসার ব্যবস্হাপনা পরিচালক এবং শাহ ওলি উল্লাহ এতিম খানার সিনিয়র সহসভাপতি শাহ জালাল উদ্দিন জুয়েল প্রস্তাব করেন মাদরাসায় হিফজ বিভাগ না করে দাদার নামে একটি হাফিজিয়া এতিমখানা করুন। 

তখন নূরী সাহেব বলেন, শাহ বাহা উদ্দিন সেলিম দাখিল মাদরাসার সভাপতি যেহেতু আছে তাই শাহ হালিম উদ্দিন কে এতিমখানার সভাপতি করে মাদরাসার টিনের ঘরে ২০০৪ সালে এতিম খানার যাত্রা শুরু করা হয়। 

এভাবেই দাখিল মাদরাসার হিফজ বিভাগ বিলুপ্ত করে শাহ ওলিউল্লাহ এতিম খানার যাত্রা শুরু হয়। যাত্রা শুরু হওয়ার পর শাহ বাহা উদ্দিন সেলিম ২০১৪ সালে সরকারী করন করেন এবং ৬ জন এতিমের কেপিটেশন গ্রান্ড আনেন পরে ২০১৭ সালে আরো ২জনের কেপিটেশন  গ্রান্ড আনেন সিনিয়র সহসভাপতি শাহ জালাল উদ্দিন জুয়েলসহ এতিমখানার কমিটি এবং এমপি সাহেবের সহযোগীতায়।

শাহ ওলি উল্লাহ এতিম খানার সিনিয়র সহসভাপতি শাহ জালাল উদ্দিন জুয়েল বলেন, আমাদের দাদার নামে আমার বাবা মাওলানা শাহ আব্দুল কুদ্দুছ নূরী সাহেব নিজ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করার পর অনেক দুর্ভোগ গেছে তবে গ্রাম বাসীর সহযোগীতায়, নূরী সাহেবের ভক্তবৃন্দ, মুরিদান এতিমখানার কমিটি এবং নূরী সাহেবের পরিবারদের অক্লান্ত পরিশ্রমে আজ এতিমখানাটি আধুনিকতার ছোয়া লেগেছে। 

এবং বর্তমান সরকারের সাংসদ আলহাজ্ব এডভোকেট মো: আব্দুল মজিদ খান এমপির সহযোগীতাও অপরিসীম । সবার সহযোগীতায় বর্তমানে এতিমসহ ২৫ জন ছাত্র হাফিজি পড়া পড়তেছেন শাহ ওলিউল্লাহ এতিমখানায় ।

সাহেবজাদায়ে নূরী সর্বপরি উনার বাবা-দাদাসহ সবার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোআ চেয়েছেন এবং এতিমখানায় সবার সহযোগীতা কামনা করেন।

আইনিউজ/জেইউ

ফেসবুক পেইজ